Yunus Urges to Build a World of Hope

Press Release (April 02, 2017)

Paris wants to be the global capital of social business

Picture shows the resolve of Paris to build a new creative society, holding up Eiffel Tower as the symbol of hope. This symbol has been adopted as the logo of Paris' Olympics 2024 bid. Olympic 2024 has already adopted Professor Yunus' three zeros as the Olympic theme.

Nobel Laureate Professor Muhammad Yunus was invited by Mayor Ann Hidalgo to Paris as chief guest at the Impact 2 conference at the Paris Town Hall on March 30, also to present this year's Impact 2 Woman Entrepreneur Award at the event.

In her opening speech at the conference Mayor Hidalgo thanked Professor Yunus for his life's work and example, and explained how they wished to build Paris as a global social business capital inspired by his work. She also explained to the gathered audience of nearly 1,000 how social business idea had been placed at the centre of Paris' bid for the Summer Olympics of 2024.

 

During the ceremony Professor Yunus was invited to share his thoughts about Paris adopting social business as a way forward for the city, and also on it being an integral part of the city's Olympic bid. Professor Yunus talked about all the negativity going around the world right now and said that Paris wanted to rekindle the indomitable spirit of human beings to overcome adversities and create a new wave of hope even in the face of seeming insurmountable global political economic and social challenges.

During the ceremony, Professor Yunus was invited to present the Woman Entrepreneur of the Year award at the ceremony to a woman entrepreneur selected from among nine finalists from South Africa, Bangladesh, Chile, Lebanon, Morocco, France, Italy, Hong Kong and Belgium. Earlier in the day, Professor Yunus was invited to listen to the pitches from all nine entrepreneurs and together with other members of the jury helped to select the Woman Entrepreneur of the Year. All projects presented were remarkable in their own way. The winner was Umgibe project of South Africa. The entrepreneur Nonhlanhla Joye had been a cancer patient and had  begun growing organic vegetables to feed herself healthy food during her illness, in an impoverished Durban township. This small project grew to involve hundreds of women organized into 38 cooperatives in the same community, to grow organic vegetables to feed themselves and sell the surplus to the market. The company will receive investment and other support from Inco, the company that organized and hosted the Impact 2 conference.

Abida Sultana a woman entrepreneur from Bangladesh who is running a catering service social business to provide hygienic and healthy meals at the cost of Taka 35 per meal (21 euro cents) in Chittagong was one of the nine finalists and came second among the top-voted project in the competition. It currently provides meals to 500 people per day, but plans to expand this to 10,000 meals a day.

During his two day stay in Paris, Professor Yunus had a meeting with Mr Rioux Remy Director of Agence Francaise de Developpment (AFD) the main development assistance agency of French government and his team at their headquarters The AFD in considering including social business as part of the strategy of the organization going forward.

Professor Yunus also attended a series of other meetings for the establishment of Yunus Centre Paris, which will be launched in the fall. It may be mentioned that Mayor Ann Hidalgo has provided an office to Yunus Centre in the historic Les Canaux building in the famous 19eme arrondisement of Paris city.

Nobel Laureate Professor Muhammad Yunus met with Dr Rioux Remy the Director of the Agence Francaise de Developpment (AFD) which is France's overseas development agency. The agency is considering bringing social business into its development strategy in the future.

END

 

প্রেস রিলিজ

 

একটি প্রত্যাশার বিশ্ব গড়ে তুলতে প্রফেসর ইউনূসের আহ্বান

প্যারিস সামাজিক ব্যবসার বৈশ্বিক রাজধানী হতে আগ্রহী

প্যারিসের মেয়র অ্যান হিদালগো ৩০ মার্চ প্যারিসের টাউন হলে অনুষ্ঠিত “ইমপ্যাক্ট ২” সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগদান করতে এবং একই সাথে এ বছরের “ইমপ্যাক্ট ২ উইমেন অনট্রপ্রনর অ্যাওয়ার্ড” অনুষ্ঠানে পুরস্কার বিতরণ করতে নোবেল লরিয়েট প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনূসকে প্যারিসে আমন্ত্রণ জানান।

সম্মেলনে তাঁর উদ্বোধনী বক্তব্যে মেয়র হিদালগো প্রফেসর ইউনূসকে তাঁর জীবনব্যাপী অসাধারণ সব কর্মকান্ড এবং সমাজ ও মানুষের জন্য বিভিন্ন উদাহরণ সৃষ্টির জন্য অভিনন্দন জানান। তিনি প্রফেসর ইউনূসের কর্মে অনুপ্রাণিত হয়ে প্যারিসকে সামাজিক ব্যবসার বৈশ্বিক রাজধানী হিসেবে গড়ে তুলতে প্যারিস নগরীর আগ্রহের কথা তুলে ধরেন। অনুষ্ঠানে উপস্থিত প্রায় ১,০০০ অভ্যাগতের নিকট তিনি সামাজিক ব্যবসার ধারণাকে ২০২৪ সালের গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক গেম্স অনুষ্ঠানে প্যারিসের প্রতিযোগিতার কেন্দ্রবিন্দু করার বিষয়টিও ব্যাখ্যা করেন।

অনুষ্ঠানে সামাজিক ব্যবসাকে প্যারিসের সামনে এগিয়ে চলার ও শহরটির অলিম্পিক অনুষ্ঠান আয়োজনের প্রতিযোগিতার অবিচ্ছেদ্য অংশে পরিণত করা বিষয়ে প্রফেসর ইউনূসকে তাঁর মতামত জানাতে অনুরোধ করা হয়। তাঁর বক্তব্যে প্রফেসর ইউনূস বিশ্ব জুড়ে চলমান যাবতীয় নঞর্থকতার প্রতি সকলের দৃষ্টি আাকর্ষণ করেন এবং পৃথিবী ব্যাপী আপাতদৃষ্টে অনতিক্রম্য বিভিন্ন রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক চ্যালেঞ্জের মুখেও সকল প্রতিকুলতা অতিক্রম করে নতুন আশার সঞ্চার করার লক্ষ্যে মানুষের অদম্য শক্তিকে পুনঃপ্রজ্জ্বলিত করতে প্যারিসের আকাংখ্যাকে সাধুবাদ জানান।

অনুষ্ঠানে প্রফেসর ইউনূসকে বছরের শ্রেষ্ঠ নারী উদ্যোক্তা পুরস্কার বিতরণ করতে আমন্ত্রণ জানানো হয়। দক্ষিণ আফ্রিকা, বাংলাদেশ, চিলি, লেবানন, মরক্কো, ফ্রান্স, ইতালী, হংকং ও বেলজিয়াম Ñ এই ৯টি দেশ থেকে চূড়ান্তভাবে বাছাইকৃত ৯ জন নারী উদ্যোক্তার মধ্য থেকে শ্রেষ্ঠ উদ্যোক্তার হাতে পুরস্কার তুলে দেন প্রফেসর ইউনূস। ঐ দিনই এর পূর্বে প্রফেসর ইউনূসকে ৯ জন বাছাইকৃত উদ্যোক্তার কাহিনী শুনতে এবং জুরি বোর্ডের অন্য সদস্যদের নিয়ে এ বছরের শ্রেষ্ঠ নারী উদ্যোক্তা বাছাইয়ে সহায়তা করতে আমন্ত্রণ জানানো হয়। উপস্থাপিত প্রত্যেক উদ্যোক্তার প্রকল্পই ছিল স্ব-স্ব ক্ষেত্রে অনবদ্য। দক্ষিণ আফ্রিকার উমগিবে (Umgibe) প্রকল্পটি চূড়ান্ত বিচারে বিজয়ী হয়। এই প্রকল্পের উদ্যোক্তা ডারবান শহরের দারিদ্র অধ্যুষিত এলাকার অধিবাসী ননলানলা জোয়ে (Nonhlanhla Joye) ছিলেন একজন ক্যান্সার রোগী যিনি তাঁর অসুস্থতার সময়ে নিজের জন্য স্বাস্থ্যসম্মত খাবার যোগাড় করতে অরগ্যানিক সবজির চাষ শুরু করেন। এই ছোট প্রকল্পটি ক্রমান্বয়ে বড় হতে থাকে এবং একসময় কয়েকশত নারীকে সংগঠিত করে ৩৮টি সমবায় সমিতিতে পরিণত হয়। এই সমিতির নারীরা অরগ্যানিক সবজি চাষ করেন এবং উৎপাদিত সবজি থেকে নিজেরা খাবার পর যা অবশিষ্ট থাকে তা বাজারে বিক্রি করেন। “ইমপ্যাক্ট ২” সম্মেলনের আয়োজক “ইনকো” এই প্রকল্পটিকে বিনিয়োগ ও অন্যান্য সহায়তা দেবে।

বাংলাদেশের উদ্যোক্তা আবিদা সুলতানা বাংলাদেশ থেকে আসা চূড়ান্তভাবে বাছাইকৃত ৯ জন নারী উদ্যোক্তার একজন। আবিদা চট্টগ্রামে একটি সামাজিক ব্যবসা ক্যাটারিং সার্ভিস চালান যা মাত্র ৩৫ টাকায় একবেলার  স্বাস্থ্যসম্মত খাবার সরবরাহ করে। প্রতিযোগিতায় আবিদার প্রকল্পটি ২য় শ্রেষ্ঠ হিসেবে বিবেচিত হয়। প্রকল্পটি এখন প্রতিদিন ৫০০ মানুষকে খাবার সরবরাহ করছে, তবে প্রতিদিন ১০ হাজার মানুষকে খাবার সরবরাহের উদ্দেশ্যে প্রকল্পটি নিজেকে সম্প্রসারিত করার পরিকল্পনা করছে।

প্যারিসে তাঁর দুই দিন অবস্থানকালে প্রফেসর ইউনূস ফরাসী সরকারের প্রধান বৈদেশিক উন্নয়ন সহযোগিতা প্রতিষ্ঠান “ফরাসী উন্নয়ন সংস্থা”র (Agence Francaise de Developpment) পরিচালক ড. রেমি রিউ ও তাঁর সহকর্মীদের সাথে প্রতিষ্ঠানটির সদর দপ্তরে সাক্ষাৎ করেন। উল্লেখ্য যে, ফরাসী উন্নয়ন সংস্থা তার কর্মকৌশলের অংশ হিসেবে সামাজিক ব্যবসাকে অন্তর্ভূক্ত করার কথা ভাবছে।

এছাড়াও প্রফেসর ইউনূস প্যারিসে ইউনূস সেন্টার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে আয়োজিত অনেকগুলো বৈঠকে যোগদান করেন। প্যারিসের ইউনূস সেন্টারটি আসছে শরৎ-এ চালু হবে। এখানে উল্লেখ করা যেতে পারে যে, প্যারিসের মেয়র অ্যান হিদালগো প্যারিস শহরের সুবিখ্যাত ১৯তম অ্যারন্দিসমেন্টে অবস্থিত ঐতহাসিক ল্য ক্যনঅ ভবনে ইউনূস সেন্টারকে একটি অফিস প্রদান করেছেন।

ছবির ক্যপশন-১ঃ আইফেল টাওয়ারকে প্রত্যাশার প্রতীক হিসেবে তুলে ধরে একটি সৃষ্টিশীল সমাজ গড়ে তুলতে প্যারিসের প্রত্যয় ছবিতে দেখা যাচ্ছে। ২০২৪ সালের অলিম্পিক গেম্স আয়োজনে প্যারিসের প্রার্থীতায় এই প্রতীককে লোগো হিসেবে গ্রহণ করা হয়েছে। প্রফেসর ইউনূসের “তিন শূন্য”র লক্ষ্যকে ইতোমধ্যে ২০২৪ অলিম্পিকের মর্মবানী হিসেবে গ্রহণ করা হয়েছে।

ছবির ক্যপশন-২ঃ নোবেল লরিয়েট প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনূস ফরাসী সরকারের প্রধান বৈদেশিক উন্নয়ন সহযোগিতা প্রতিষ্ঠান “ফরাসী উন্নয়ন সংস্থা”র (Agence Francaise de Development) পরিচালক ড.  রেমি রিউ-র সাথে সাক্ষাৎ করেন । ফরাসী উন্নয়ন সংস্থা সামাজিক ব্যবসাকে তার ভবিষ্যত উন্নয়ন কর্মকৌশলের  অন্তর্ভূক্ত করার কথা বিবেচনা করছে।

 

-------

hard-extreme.com tellyseries